কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগের‌ মধ্যে পদত্যাগ করলেন Xiaomi India-র সেলস ডিরেক্টর

পদত্যাগ করলেন Xiaomi India-র অফলাইন সেলসের ডিরেক্টর সুনীল বেবি, কেন তা জেনে নিন

xiaomi-india-director-offline-sales-resigns-sunil-baby

সম্প্রতি নিজের পদ থেকে ইস্তফা দিলেন Xiaomi India (শাওমি ইন্ডিয়া)-র অফলাইন সেলসের ডিরেক্টর সুনীল বেবি (Sunil Baby)। ভারতে Xiaomi-র অফলাইন বিজনেসকে বিপুল পরিমাণে সম্প্রসারিত করতে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন বেবি, এবং সেকথা সংস্থার সমস্ত আধিকারিকরাও অকপটে স্বীকার করেছেন। আর তাই এই প্রাক্তন সিনিয়র এক্সিকিউটিভকে ২০২০ সালে বিগত ১০ বছরে Xiaomi-র সাফল্যের পিছনে ১০০ জন উল্লেখযোগ্য অবদানকারীর মধ্যে একজন হিসেবে পুরস্কৃত করা হয়েছিল। বেবির এই আচমকা পদত্যাগের খবর ইতিমধ্যেই রীতিমতো শোরগোল ফেলে দিয়েছে টেকমহলে।

Xiaomi India-র তরফে জারি করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে, বেবি বিশেষ কিছু ব্যক্তিগত কারণেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সংস্থার এক মুখপাত্র জানিয়েছেন যে, তিনি শাওমি ইন্ডিয়ার অফলাইন সেলসের সম্প্রসারণ এবং আরও বেশি পরিমাণে রিটেল স্টোর গড়ে তোলার লক্ষ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। সারা দেশের পার্টনারদের সঙ্গে সংস্থার অটুট মেলবন্ধনের পাশাপাশি উভয় পক্ষের মধ্যে ব্যবসায়িক সম্পর্ককে আরও মজবুত করতে তাঁর অবদান অনস্বীকার্য। তাই বেবির এই পদত্যাগের সিদ্ধান্ত যে শাওমিকে কতটা প্রভাবিত করবে, তা এখান থেকেই স্পষ্টভাবে বোঝা যাচ্ছে।

সংস্থাটি আরও জানিয়েছে যে, শাওমি ইন্ডিয়ার সিওও, মুরালিকৃষ্ণন বি (Muralikrishnan B), এখন থেকে অফলাইন সেলস এবং ডিস্ট্রিবিউশনের বিষয়টি তত্ত্বাবধান করবেন। কোম্পানির বিবৃতিতে এও বলা হয়েছে যে, সুনীল যেভাবে এতদিন ধরে সংস্থার অফলাইন ব্যবসাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে নিরলস পরিশ্রম করেছেন, এবার ঠিক একইভাবে তাঁর পদচিহ্ন অনুসরণ করেই সংস্থাটি যথাযথভাবে জোরকদমে কাজ চালিয়ে যাওয়া অব্যাহত রাখবে৷ সেইসাথে সংস্থাকে এতদিন যাবৎ দুর্দান্ত পরিষেবা দেওয়ার জন্য সুনীল বেবিকে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি তাঁর ভবিষ্যৎ জীবনের জন্যও আগাম শুভেচ্ছা জানিয়েছে শাওমি ইন্ডিয়া।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, সম্প্রতি কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগে সরকারি সংস্থাগুলির সঙ্গে মতবিরোধ ঘটেছিল শাওমির। আর ঠিক সেই সময়ই বেবির পদত্যাগ টেকমহলে বেশ ভালোরকম গুঞ্জনের সৃষ্টি করেছে। যদিও সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে যে বেবি ব্যক্তিগত কারণেই এই ইস্তফা দিয়েছেন, কিন্তু এর সঙ্গে অন্য কোনো ঘটনার যোগসাজশ আছে কি না, সে নিয়ে অনেকের মনেই সন্দেহ দেখা দিয়েছে। শুধু বেবিই নয়, সংস্থার শীর্ষ প্রধান মনু কুমার জৈন (Manu Kumar Jain)-ও সম্প্রতি ম্যানেজিং ডিরেক্টরের পদ থেকে সরে এসে দুবাই চলে যান। আসলে শাওমি ইন্ডিয়া রয়্যালটি পেমেন্টের নাম করে বিদেশী সংস্থাগুলির কাছে ৫,৫৫০ কোটি টাকারও বেশি অর্থ প্রেরণ করায় জৈনকে ইডি (ED) এই মামলার তদন্তের জন্য তলব করেছিল। এখন এই মামলাটি আদালতে চলছে, এবং শাওমি ইন্ডিয়াকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে, শুধুমাত্র ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে লেনদেন করতে পারবে সংস্থাটি, কোনোরকম রয়্যালটি-সম্পর্কিত ট্রানজ্যাকশন করা যাবে না। আর এইসব ঘটনাই স্পষ্ট ইঙ্গিত দেয় যে, বেবির পদত্যাগের আসল কারণ নিয়ে যথেষ্ট ধোঁয়াশা রয়েছে।

শুধু আইনত মামলাই নয়, অফলাইন খুচরো বিক্রেতাদের সঙ্গেও একাধিকবার ঝামেলায় জড়িয়েছে Xiaomi India। বহু জনপ্রিয় স্মার্টফোন প্রথমে অনলাইনে লঞ্চ করে Xiaomi, যার ফলে অধিকাংশ ইউজাররাই ঘরে বসে হাতের মুঠোয় ফোনগুলিকে পাওয়ার জন্য অনলাইনেই কেনাকাটা সেরে ফেলেন। আর এই নিয়েই দীর্ঘদিন ধরে অফলাইন রিটেইল স্টোর মালিকরা সংস্থার বিরুদ্ধে নিজেদের ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন। সম্প্রতি অনলাইনে রেডমি নোট (Redmi Note) সিরিজের মতো জনপ্রিয় স্মার্টফোন বিক্রি করাকে কেন্দ্র করে অফলাইন খুচরো বিক্রেতাদের মধ্যে তীব্র অসন্তোষের সৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু Xiaomi-র পক্ষ থেকে সর্বদাই বলা হয়েছে যে, তারা অনলাইনের পাশাপাশি অফলাইন বিজনেসকেও সমান অগ্রাধিকার দিয়েছে, যদিও বাস্তবে তা ঘটেনি বলেই স্টোর মালিকদের অভিযোগ। এখন সুনীল বেবি সংস্থার হাত ছাড়ার পর ভবিষ্যতে কীভাবে Xiaomi ভারতে তাদের অফলাইন এবং অনলাইন বিজনেসকে এগিয়ে নিয়ে যায়, এখন সেটাই দেখার।

গেম খেলতে এখানে ক্লিক করুন

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।