Herschel 36: সূর্যের চেয়ে ৩২ গুন বড় ও ২ লক্ষ গুণ উজ্জ্বল তারার খোঁজ পেল NASA

হার্সেল ৩৬ বয়সের নিরিখে অনেকটাই নবীন। বর্তমানে এর বয়স এক মিলিয়ন (১০ লক্ষ) বছর

nasa-hubble-image-giant-star-32-times-size-sun-harschel-36-lagoon-nebula

রাতের মেঘমুক্ত আকাশে তাকালে আমরা টের পাই লক্ষ লক্ষ তারার ঝলকানি। তার মধ্যে খুব অল্প সংখ্যক নক্ষত্রের কথাই আমরা জানি। আবার যাদের কথা আমরা এখনো জানিনা, তাদের সম্বন্ধে জানারও আমাদের অন্ত নেই। একাজে সদা ব্যাপৃত রয়েছেন পৃথিবীর বিজ্ঞানীরা। তাদেরই প্রচেষ্টায় এবার সৌরজগৎ থেকে বিপুল আলোকবর্ষ দূরে খোঁজ পাওয়া গেল এক নতুন তারার। সদ্য মহাকাশ সংস্থা নাসা’র (NASA) হাবল টেলিস্কোপে (Hubble Telescope) এই তারাটি ধরা পড়েছে, যা সৌরজগতের কেন্দ্রস্থিত সূর্যের চেয়ে প্রায় ৩২ গুণ বড়!

সূর্যের চেয়ে ২,০০০,০০ গুণ উজ্জ্বল তারার খোঁজ পেল NASA

আজ্ঞে হ্যাঁ, হার্সেল ৩৬ (Herschel 36) নামক এই সদ্য আবিষ্কৃত নক্ষত্র লাগুন নেবুলা’র (Lagoon Nebula) মধ্যভাগে অবস্থিত। বড় হওয়ার পাশাপাশি এটি সূর্যের তুলনায় প্রায় ২,০০০,০০ গুণ বেশি উজ্জ্বল। তাছাড়া আমাদের পৃথিবী থেকে আন্তঃনাক্ষত্রিক মেঘে ঢাকা এই নক্ষত্র প্রায় ৪,০০০ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত বলে প্রকাশ্যে এসেছে।

নাসা জানিয়েছে, গর্জনরত ও বিক্ষোভপূর্ণ নাক্ষত্রিক ঝড় লাগুন নেবুলার অন্যতম বৈশিষ্ট্য। একইসাথে এখানে নক্ষত্র থেকে আগত রেডিয়েশন, বিশেষ করে শক্তিশালী অতিবেগুণী রশ্মির বিকিরণ খুব বেশি। এইসব বিশেষত্বের কারণে গ্যাসীয় পদার্থ ও ধুলো জমাট বেঁধে সেখানে (Lagoon Nebula) কাল্পনিক গহ্বর ও শৈলশ্রেণির সৃষ্টি করেছে।

সূর্যের তুলনায় অনেক নবীন সদ্য আবিষ্কৃত Herschel 36

উল্লেখ্য, নাসার বক্তব্য অনুযায়ী হার্সেল ৩৬ বয়সের নিরিখে অনেকটাই নবীন। বর্তমানে এর বয়স এক মিলিয়ন (১০ লক্ষ) বছর। প্রতিনিয়ত এই তারা থেকে হাইড্রোজেন ও নাইট্রোজেনের মতো আয়োনাইজড গ্যাস নির্গত হচ্ছে বলেও নাসা জানিয়েছে। এ সম্পর্কিত কয়েকটি ছবিও তারা নেটিজেন মহলের সাথে ভাগ করে নিয়েছে।

পরিশেষে জানিয়ে রাখি, সদ্য আবিষ্কৃত হার্সেল ৩৬ কমপক্ষে আরো ৫ মিলিয়ন‌ বছর বাঁচবে বলে নাসা’র বিজ্ঞানীদের অভিমত। বয়সের দিক থেকে সূর্য এর তুলনায় বহু প্রাচীন। সূর্যের বর্তমান বয়স ৫ বিলিয়ন বছর এবং এটি আরো ৫ বিলিয়ন বছর জীবিত থাকবে বলে বিজ্ঞানীরা স্বীকার করে নিয়েছেন।

গেম খেলতে এখানে ক্লিক করুন

One of the newest members of the Techgup Family. Soumo grew his liking for gadgets almost a decade back while searching for his first smartphone, and started writing about tech recently in 2020