Maruti Suzuki হরিয়ানার তাদের বৃহত্তম কারখানা তৈরি করবে, 11000 কোটি টাকা লগ্নি, চুক্তি সাক্ষর হল

Maruti Suzuki to set up its largest manufacturing facility in Haryana

ভারতে  নতুন কারখানা গড়ে তুলতে চলেছে দেশের বৃহত্তম অটোমেকার মারুতি সুজুকি (Maruti Suzuki)।যা হবে এদেশে তাদের বৃহত্তম। দীর্ঘদিন ধরেই এ নিয়ে বিভিন্ন খবর প্রকাশ্যে এসেছে। এবারে মারুতি সুজুকি হরিয়ানার আইএমটি খারখোদায় গাড়ির কারখানা তৈরির পথে এক ধাপ এগিয়ে গেল। হরিয়ানা সরকারের সাথে আনুষ্ঠানিক ভাবে চুক্তি স্বাক্ষর করল ইন্দো-জাপানি সংস্থাটি। সোনিপাত জেলায় আগেই ৯০০ একর জমি বরাদ্দ করা হয়েছিল। যার মধ্যে মারুতি সুজুকির ৮০০ একর এবং সুজুকি মোটরসাইকেল (Suzuki Motorcycle)-এর ১০০ একর। অর্থাৎ গাড়ি এবং টু-হুইলারের কারখানা পাশাপাশি গড়ে উঠবে।

সংস্থাটি জানিয়েছে তাদের এই নতুন কারখানায় বার্ষিক ১০ লক্ষ গাড়ির উৎপাদন হবে। হরিয়ানা সরকারের সাথে মারুতি সুজুকি চুক্তি স্বাক্ষরের সময় সুজুকি মোটরসাইকেলের ১০০ একরের কারখানায় ১,৫০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করার কথা ঘোষণা করেছে। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খাট্টার, উপমুখ্যমন্ত্রী দুষ্মন্ত চৌটালা, মারুতি সুজুকির ভারতীয় চেয়ারম্যান আরসি ভার্গব, মারুতি সুজুকির ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও কেনিচি আয়ুকাবা সহ প্রমুখ ব্যক্তিবর্গ।

খারখোদার ৮০০ একরের কারখানায় প্রথম ধাপে ১১,০০০ কোটি টাকা লগ্নি করবে মারুতি। ২০২৫ থেকে এই কারখানায় গাড়ির উৎপাদন শুরু হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে প্রাথমিক পর্যায়ে বছরে কেবল ২.৫ লক্ষ গাড়ি নির্মাণ করা হবে। এই প্রসঙ্গে কেনিচি আয়ুকাবা বলেন, “আমরা আজ হরিয়ানা সরকারের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করলাম। ৮০০ একর জমি মারুতি সুজুকি এবং ১০০ একর সুজুকি মোটরসাইকেল ইন্ডিয়া প্রাইভেট লিমিটেডকে দেওয়া হয়েছে। মারুতি সুজুকি খুব তাড়াতাড়ি এই কারখানা তৈরির কাজ শুরু করবে।”

আয়ুকাবা যোগ করেন, “যখন সুজুকি মোটর কর্পোরেশন হরিয়ানাতে প্রথম কারখানা তৈরি করেছিল, ভারত তখন বিশ্বের গাড়ি তৈরির মানচিত্রে ছিল না। বর্তমানে ভারত বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম গাড়ির বাজার। এবং আমরা আশা করছি আগামীতে ভারত বিশ্বের মধ্যে তৃতীয় বৃহত্তম গাড়ির উৎপাদনকারী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে।”

গেম খেলতে এখানে ক্লিক করুন

শুভদীপ টেকগাপে অটোকার বিষয়ক লেখালিখি করে। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, অটোকার নিয়ে টেকগাপে তার হাতেখড়ি। দিনকে দিন সে টেকগাপের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হয়ে উঠেছে।