Zinc Air Battery: বৈদ্যুতিক গাড়ির জন্য আদর্শ জিঙ্ক এয়ার ব্যাটারি তৈরি করছেন আইআইটির গবেষকরা

বৈদ্যুতিন যানবাহনে ব্যবহারের উপযোগী জিঙ্ক-এয়ার ব্যাটারি তৈরি করছেন আইআইটি-মাদ্রাজের একদল গবেষক। ইতিমধ্যে এই ধরনের নতুন প্রযুক্তির ব্যাটারির পেটেন্টের জন্য আবেদন দাখিল করা করেছেন তারা৷ প্রচলিত লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির তুলনায় এর উৎপাদন খরচ আরও কম। বেশি নিরাপদ। প্রকৃতিতে লিথিয়ামের পরিমাণ সীমিত। কিন্তু জিঙ্কের ভান্ডার অফুরন্ত। তাই ভবিষ্যতে বিদ্যুৎচালিত গাড়িকে নতুন দিশা দেখাতে পারে জিঙ্ক-এয়ার ব্যাটারি।

আগুন লাগার কোনও ভয় নেই, ভবিষ্যতে বৈদ্যুতিক গাড়িতে ব্যবহারের পক্ষে আদর্শ হবে Zinc-Air ব্যাটারি

বর্তমানে বিভিন্ন বৈদ্যুতিক যানবাহনে সাধারণভাবে লিথিয়াম-আয়োন (Lithium-ion) ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়। যদিও এ প্রকার ব্যাটারির সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। বিগত দু’মাসে ভারতে বিভিন্ন ইলেকট্রিক স্কুটারের ব্যাটারি বিস্ফোরিত হয়ে আগুন ধরেছে। এমতাবস্থায় আইআইটি-মাদ্রাসে গবেষণারত কৃতীদের জিঙ্ক-এয়ার ব্যাটারির উন্নয়নে কাজকর্মের প্রভাব হতে পারে সুদূরপ্রসারী।

গবেষক দলের এক সদস্য বলেন, জিঙ্ক-এয়ার ব্যাটারি সাশ্রয়ী হওয়ার পাশাপাশি দীর্ঘস্থায়ী। এর ফলে এটি দুই বা তিন চাকার গাড়িতে ব্যবহারের পক্ষে খুবই উপযোগী। তাছাড়া এতে আগুন লাগার সম্ভাবনাও যথেষ্ট কম। ফলে ভবিষ্যতে এটি বিদ্যুৎচালিত যানবাহনে ব্যবহারের পক্ষে আদর্শ হয়ে উঠতে পারে।

পেট্রল স্টেশনের অনুকরণে দেশের সর্বত্র জিঙ্ক-এয়ার রিচার্জ স্টেশন গড়ে তোলার দাবি

সদ্য-ডেভেলপ করা জিঙ্ক-এয়ার ব্যাটারির এই ইতিবাচক দিকগুলির ব্যাপারে অবহিত হওয়ায় মাদ্রাজ-আইআইটির গবেষক দল পেট্রল পাম্পের অনুকরণে সর্বদেশব্যাপী জিঙ্ক-এয়ার রিচার্জ স্টেশন নির্মাণের পক্ষে সওয়াল করেছেন। কারণ এই ধরনের ব্যাটারির ক্ষেত্রে শুধু ভেতরের জিঙ্ক ক্যাসেট বদলাতে হয়‌ পুরো ব্যাটারি প্যাক নয়৷ ফলে স্বল্প পরিকাঠামো দরকার হবে৷ বেশি বিনিয়োগের প্রয়োজন পড়বে না। ওই কেন্দ্রগুলিতে জিঙ্ক-এয়ার ব্যাটারি ব্যবহারকারীরা তাদের ফুরিয়ে যাওয়া ক্যাসেট বদল করে চার্জপূর্ণ ক্যাসেট সংগ্রহ করতে পারবেন।

উল্লেখ্য, মাদ্রাজ আইআইটির গবেষকেরা কেবলমাত্র জিঙ্ক-এয়ার ব্যাটারি ডেভেলপ করেই ক্ষান্ত হননি। উপরন্তু তারা সৌরশক্তি মারফত ব্যবহৃত জিঙ্ক ক্যাসেটগুলিকে চার্জ করার পন্থা খুঁজছেন। এর ফলে এরা ব্যবহারিক ক্ষেত্রে অত্যন্ত জনপ্রিয়তা পেতে পারে। গবেষক দলের এক সদস্যের কথায়, বর্তমানে সারা দেশে ব্যাপক পরিমাণে জিঙ্ক মজুত রয়েছে। তাই ভবিষ্যতে ইলেকট্রিক টু-হুইলার, থ্রি-হুইলার, ও ফোর হুইলারে  জিঙ্ক-এয়ার ব্যাটারির ব্যবহার সবথেকে উপযুক্ত হবে। তাছাড়া জিঙ্ক ব্যাটারির উৎপাদনে প্রয়োজন দুই প্রধান উপাদান জিঙ্গ ও ম্যাঙ্গানিজের অফুরন্ত যোগান ভারতে। ফলে কাঁচামাল পেতেও অসুবিধা হবে না।

স্মার্টফোন, গাড়ি-বাইক সহ প্রযুক্তি দুনিয়ার সব গুরুত্বপূর্ণ খবর সবার আগে পেতে ফলো করুন আমাদের Google News ও Twitter পেজ, সঙ্গে অ্যাপ ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।