Personal Data Protection Bill: সংশোধনের প্রয়োজন! ডেটা প্রোটেকশন বিল তুলে নিল সরকার

সরকার প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ২০১৯ সালের উপরোক্ত বিলে একাধিক সংশোধন প্রয়োজনীয় মনে হওয়ায়, সাময়িকভাবে তা প্রত্যাহার করা হচ্ছে

government-withdraws-personal-data-protection-bill-replaced-with-comprehensive-framework

বুধবার বিতর্ক উসকে দেওয়া ‘Personal Data Protection Bill’ তুলে নেওয়ার কথা ঘোষণা করলো কেন্দ্রীয় সরকার। ২০১৯ সালে ইউজারদের ব্যক্তিগত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও গোপনীয়তা রক্ষার স্বার্থে বিলটি সামনে আনা হয়। কিন্তু মাত্র তিন বছরের ব্যবধানে এই বিল তুলে নেওয়ার ফলে নেটিজেনদের মধ্যে প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। কেন্দ্র জানিয়েছে, ইউজারদের ডেটা সুরক্ষার প্রয়োজনে তারা ফের একটি নতুন বিল প্রকাশ্যে আনবে। কিন্তু তার আগে বেশ কিছু খামতি থাকায় তারা পূর্ববর্তী পার্সোনাল ডেটা প্রোটেকশন বিল তুলে নিচ্ছেন। সংসদীয় প্যানেলের পর্যালোচনায় পরেই এহেন সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে বলে সামনে এসেছে।

সরকার প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ২০১৯ সালের উপরোক্ত বিলে একাধিক সংশোধন প্রয়োজনীয় মনে হওয়ায়, সাময়িকভাবে তা প্রত্যাহার করা হচ্ছে। তবে ইউজারদের ব্যক্তিগত তথ্য এবং গোপনীয়তার সুরক্ষায় সরকারের কাজ এখানেই থেমে থাকছে না। তাই খুব শীঘ্রই সরকারের তরফ থেকে এই সংক্রান্ত নয়া বিল প্রকাশ্যে আনা হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে। যদিও ঠিক কতদিনের মধ্যে নতুন বিল পেশ করা হবে, সে সম্পর্কে এখনও কিছুই জানা যায়নি।

নতুন বিল পেশের সময় জানা না গেলেও, তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী রাজীব চন্দ্রশেখরের দাবি, আসন্ন সরকারি ফ্রেমওয়ার্ক বৈশ্বিক মানদণ্ডের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হতে চলেছে। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন, প্রাইভেসি বা গোপনীয়তার অধিকার অপরাপর মৌলিক অধিকারের মতোই গুরুত্বপূর্ণ। তাই ভারতে এই সংক্রান্ত আইনের উপস্থিতি যে অত্যন্ত জরুরি তা মন্ত্রীর বক্তব্যে উঠে এসেছে।

নয়া দিল্লি ভিত্তিক বিশেষজ্ঞ প্রশান্ত রায়ের মতে, নতুন করে প্রাইভেসি বিল প্রণয়নের চেষ্টা অতীব সাধু উদ্যোগ। এর ফলে দেশে ডেটা রেগুলেশনের ক্ষেত্রে সার্বিক ঐক্যের সৃষ্টি হবে যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এদিকে সরকারের অভিমত, ব্যক্তিগত তথ্য এবং গোপনীয়তার সুরক্ষা নিশ্চিতকরণের পাশাপাশি নয়া বিল অর্থনীতির জন্যও খুব গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। সর্বোপরি এর দ্বারা ইউজারদের ব্যক্তিগত ডেটার অপব্যবহার সম্পূর্ণ লোপ পাবে বলেই আইনপ্রণেতাদের দাবি।

সবার আগে খবর পেতে Google News-এ ফলো করুন