Bajaj Pulsar 250: সবচেয়ে শক্তিশালী পালসার এবার ঝলমলে নীল রঙে লঞ্চ হল

bajaj-pulsar-f250-launched-in-new-blue-colour-scheme-price-unchanged
Pic credit- Dino's Vault

নতুন রঙের চাদর গায়ে জড়িয়ে বাজারে এল Bajaj Pulsar F250। উল্লেখ্য, ২০২১-এর অক্টোবরে ভারতের বাজারে লঞ্চ হয়েছিল Bajaj Pulsar N250 ও F250। তখন টেকনো গ্রে ও রেসিং রেড কালারের সাথে ভিন্ন গ্রাফিক্সে এসেছিল বাইকগুলি৷ কিন্তু এবার Pulsar F250 মডেলটি নীল রঙে হাজির করল Bajaj। সংস্থার অন্যান্য নীল রঙের বাইকের সাথে এই রঙটির সামান্য পার্থক্য রয়েছে। এটি আরও স্পোর্টি এবং নজর টানবে৷ নীল রঙে উপলব্ধ বাজাজের অন্যান্য বাইকগুলি হল NS200, 220F, Pulsar 150, NS125, Platina 110ES এবং CT100।

বাজাজ পালসার এফ২৫০ স্পেসিফিকেশন (Bajaj Pulsar F250 Specifications)

বাজাজ পালসার এফ২৫০ নয়া রঙের বিকল্পে এলেও এর ইঞ্জিনে কোনো আপডেট ঘটানো হয়নি। আগের মতই এর ২৪৯.০৭ সিসি সিঙ্গেল সিলিন্ডার, ২ ভাল্ভ, SOHC, অয়েল কুল্ড, ফুয়েল ইঞ্জেক্টেড মোটরটি থেকে ৮,৭৫০ আরপিএম গতিতে ২৪.৫ পিএস শক্তি এবং ৬,৫০০ আরপিএম গতিতে ২১.৫ এনএম টর্ক পাওয়া যাবে। সাথে রয়েছে ৫-স্পিড গিয়ার বক্স।

এছাড়া হার্ডওয়্যারের মধ্যে দু’চাকাতেই ডিস্ক ব্রেক, সিঙ্গেল চ্যানেল এবিএস, টেলিস্কোপিক ফ্রন্ট ফোর্ক, রিয়ার নাইট্রক্স মোনোশক সাসপেনশন। ১৭ ইঞ্চি হুইল, ১০০/৮০ ফ্রন্ট এবং ১৩০/৭০ রিয়ার টিউবলেস টায়ার আছে।

নতুন রঙটি বাজাজ পালসার এফ২৫০-কে নজরকাড়া স্টাইলের সাথে স্পোর্টি লুক দিয়েছে। এর চমকদার কালার শেডের জন্য রাস্তায় চলার সময় একটি বার হলেও চোখ টানবে‌। মোটরসাইকেলটির ফ্রন্ট কাউল, সাইড ফেয়ারিং এবং ফুয়েল ট্যাঙ্কে নীলের ছোঁয়া দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ফন্ট ফেন্ডার, ইঞ্জিন কাউল এবং রিয়ার টল সেকশনটিও নীল রঙের। বাড়তি পাওনা হিসেবে এতে উপস্থিত স্পোর্টি গ্রাফিক্স এবং স্টিকার। এবাদে অন্যান্য অংশ কালো রঙে শোভিত৷

প্রসঙ্গত, লঞ্চের সময় পালসার এন২৫০ (নেকেড) এবং এফ২৫০ (সেমি-ফেয়ার্ড) দাম ছিল ১.৩৮ ও ১.৪০ লক্ষ টাকা (এক্স-শোরুম)। পরে অবশ্য এদের দাম বেড়ে হয় ১,৩৯,১১৭ টাকা ও ১,৪০,৯১৫ টাকা। নতুন রঙে মডেলটি ওই একই দামেই লঞ্চ হয়েছে৷ এদিকে ভবিষ্যতে বাজাজ ৫০০ সিসির পালসার নিয়ে আসতে পারে বলে কান পাতলে বিভিন্ন মহলে শোনা যাচ্ছে।

গেম খেলতে এখানে ক্লিক করুন

শুভদীপ টেকগাপে অটোকার বিষয়ক লেখালিখি করে। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, অটোকার নিয়ে টেকগাপে তার হাতেখড়ি। দিনকে দিন সে টেকগাপের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হয়ে উঠেছে।