সুরক্ষিত নয় Amazon শপিং সাইট? ভুয়ো রিভিউ দেখে প্রোডাক্ট কিনে প্রতারিত ২ লক্ষ মানুষ

ই-কমার্স শপিং প্ল্যাটফর্ম Amazon সম্পর্কে নতুন করে আর কাউকে কিছু বলার প্রয়োজন পড়ে না। আমেরিকার এই শপিং সাইটটি দিন-কে-দিন জনপ্রিয়তার নিরিখে অন্যান্যদের কে পিছনে ফেলছে। আমরা যখনই কোনো কিছু কেনার জন্য Amazon-এ ঢুঁ মারি, তখন প্রথমেই আমাদের সংশ্লিষ্ট প্রোডাক্টটির রিভিউ সেকশনের দিকে চোখ যায়। প্রোডাক্টটির সম্পর্কে অন্যান্য ব্যবহারকারীরা কিরকম রিভিউ দিয়েছেন, তার ওপর নির্ভর করেই আমরা অনেকে জিনিসটি কেনার কথা চিন্তাভাবনা করি। বেশিরভাগ ভালো রিভিউ থাকলে আমরা জিনিসটি কিনে ফেলি এবং যদি অধিকাংশই খারাপ রিভিউ দেখি, তাহলে প্রোডাক্টটি বাজে বলেই গণ্য করি। কিন্তু আমরা কি কখনো ভেবে দেখেছি যে এই রিভিউগুলি আসল না ভুয়ো? হ্যাঁ, এবার সেগুলো নিয়ে ভাবার সময় এসেছে। কারণ সম্প্রতি এক সমীক্ষায় জানা গেছে যে, Amazon-এর ‘ফেক’ (জাল বা ভুয়ো) রিভিউয়ের দ্বারা ২,০০,০০০ এরও বেশি ব্যবহারকারী প্রভাবিত হয়েছে!

Apple Insider-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, SafetyDetectives-এর নিরাপত্তা গবেষকরা চীনের এক সার্ভার থেকে এই কেলেঙ্কারির যাবতীয় কার্যাবলী পর্যালোচনা করেছেন। এর ফলেই জানা গেছে যে, Amazon-এর রিভিউ সেকশনটি বেশ কয়েকবছর ধরেই ভুয়ো রিভিউ-এর দ্বারা প্রভাবিত হচ্ছে। বেশ কিছু প্রোডাক্টে জাল হাই রেটিং (high rating) দেওয়া থাকছে যা ব্যবহারকারীদের জিনিসটি কেনার জন্য উৎসাহিত করছে। হাই রেটিং দেওয়া থাকায়, যখনই কেউ ‘User Rating’ ফিল্টারের উপর ভিত্তি করে সার্চ করেন, তখন স্বয়ংক্রিয়ভাবে সাজেশন লিস্টের শীর্ষে সংশ্লিষ্ট ভুয়ো রেটিংযুক্ত প্রোডাক্টগুলির নাম ভেসে ওঠে।

কিন্তু এই ভুয়ো হাই রেটিং কীভাবে প্রোডাক্টগুলিতে দেওয়া হচ্ছে? রিপোর্টে জানানো হয়েছে, অ্যামাজন বিক্রেতারা (Amazon vendors) রিভিউয়ারদের কাছে প্রোডাক্টগুলির একটি তালিকা পাঠান। এগুলিই হল যাবতীয় সেই সকল প্রোডাক্ট যার ওপর তারা উচ্চ মানের (সাধারণত 5 স্টার) রেটিং চাইছেন। এরপর এই পর্যালোচকরা (reviewers) প্রোডাক্টগুলি কিনে সেগুলির জন্য ৫ স্টার রেটিং দেয়। এর ফলে প্রোডাক্টগুলি সাজেশন লিস্টের শীর্ষে চলে আসে, এবং ব্রাউজ করার সময় আপনার চোখের সামনে আরও স্পষ্টভাবে ভেসে ওঠে।

Amazon-এ রিভিউ দেওয়া হয়ে যাওয়া মাত্রই, রিভিউয়ার সংশ্লিষ্ট ভেন্ডরকে একটি মেসেজ পাঠায়, যার মধ্যে Amazon প্রোফাইলের লিঙ্ক এবং PayPal ডিটেলসও অন্তর্ভুক্ত থাকে। রিভিউয়ার তখন কেনা আইটেমের জন্য অর্থ ফেরত পাওয়ার পাশাপাশি প্রোডাক্টটিও কাছে রাখার সুযোগ পান। শুধু তাই নয়, রিপোর্ট অনুযায়ী জানা গেছে যে, কেউ কেউ এর জন্য অতিরিক্ত নগদ অর্থও দাবি করেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, নিরাপত্তা গবেষকরা ১ মার্চ, ২০২১ তারিখে ১৩ মিলিয়নেরও বেশি রেকর্ড (প্রায় ৭ জিবি ডেটা) থাকা একটি ডেটাবেস খুঁজে পান। এই ডেটাবেসটিতে কেবল ইমেল অ্যাড্রেসই নয়, Amazon রিভিউ কেলেঙ্কারিতে অংশ নেওয়া বিক্রেতাদের WhatsApp এবং Telegram ফোন নম্বরও অন্তর্ভুক্ত ছিল। এছাড়াও অ্যামাজন অ্যাকাউন্টের প্রায় ৭৫,০০০ লিঙ্কসহ PayPal অ্যাকাউন্টের ডিটেলস এবং ইউজারনেমও পাওয়া গেছে। তবে গ্রাহকদের সুবিধার্থে Amazon এই ভুয়ো রিভিউ রুখতে ঠিক কী পদক্ষেপ নেবে, সে বিষয়ে এখনও কিছু পরিষ্কারভাবে জানা যায়নি।সুরক্ষিত নয় Amazon শপিং সাইট? ভুয়ো রিভিউ দেখে প্রোডাক্ট কিনে প্রতারিত ২ লক্ষ মানুষ

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন

স্মার্টফোন, গাড়ি-বাইক সহ প্রযুক্তি দুনিয়ার সব গুরুত্বপূর্ণ খবর সবার আগে পেতে ফলো করুন আমাদের Google News ও Twitter পেজ, সঙ্গে অ্যাপ ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।