AirAsia: এরোপ্লেনের পর এবার এয়ার ট্যাক্সি, উড়ন্ত গাড়িতে মানুষকে গন্তব্যে পৌঁছে দেবে এয়ারএশিয়া!

air-asia-to-launch-flying-taxi-service-test-flights-begins-from-april

স্থল ও জলপথে চলতি হরেক রকম যানবাহন তো অনেক দেখলেন। এবার পালা আকাশপথের। আসলে দিনদিন যে হারে যানজট বেড়ে চলেছে, তাতে সময়ের মধ্যে গন্তব্যস্থলে পৌঁছানো, বর্তমান দিনে শহরাঞ্চলের মানুষের কাছে একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই গাড়ি সংস্থাগুলির লক্ষ্য এবার অন্তরীক্ষের দিকে। যদিও এই গোত্রে বিমান ও হেলিকপ্টারের নাম নেওয়াই যায়, কিন্তু কাছেপিঠে ভ্রমণের জন্য এগুলি মোটেই আদর্শ উপায় নয়। সাধারণ মানুষের সেই প্রয়োজন মেটানোর হদিশ করতে গিয়েই আবিষ্কার হয় ফ্লাইং ট্যাক্সি (Flying Taxi) বা eVTOL (ইলেকট্রিক ভার্টিক্যাল টেক-অফ অ্যান্ড ল্যান্ডিং)-এর।

এই ফ্লাইং ট্যাক্সি বা eVTOL সর্বসাধারণের জন্য বাজারে নিয়ে আসার দৌড়ে শামিল বিশ্বের একাধিক তাবড় সংস্থা। কে কার আগে এটি বাজারে চালু করার কেরামতি দেখাতে পারে, সংস্থাগুলির মধ্যে সেই নিয়েই চলছে দিনরাত প্রতিযোগিতা। যদিও একাধিক কোম্পানি তাদের উড়ন্ত বাহনটির টেস্ট ড্রাইভের কাজ ইতিমধ্যেই সফলতার সাথে সম্পন্ন করেছে। বিদ্যুৎ চালিত উড়ন্ত ট্যাক্সিগুলি এখন শুধু বাজারে নিয়ে আসার পালা। এবার AirAsia Aviation group খুব শীঘ্রই VX4 eVTOL বা উড়ন্ত ট্যাক্সি চালু করার বিষয়ে পরিকল্পনা করছে।

এই মর্মে সংস্থাটি Avolon-এর সাথে গাঁটছড়া বেঁধেছে। অনলাইন অ্যাপ ক্যাব পরিষেবার মতই এগুলো যাত্রীদের কাছেপিঠের গন্তব্যে পৌঁছে দিতে আকাশপথে উড়িয়ে নিয়ে যাবে। এয়ার রাইডিং সার্ভিসের জন্য আপাতত ১০০ টি উড়ন্ত ট্যাক্সি লঞ্চ করা হতে পারে। সব ঠিকঠাক চললে এ বছরের এপ্রিল থেকে পরীক্ষামূলকভাবে চালু হতে পারে এই পরিষেবা। প্রাথমিক পর্যায়ে মালয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুরে চালানো হবে এগুলি। তবে ক্রমশ ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড এবং ফিলিপিন্সেও চালু হবে এই পরিষেবা।

আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স (Reuters)-এর এক রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, গত বছর Avolon ৫০০ টি VX4 এয়ারক্রাফ্টের বরাত দিয়েছিল Vertical Aerospace-কে। যার ৯০% AirAsia, Japan Airlines, Brazil’s GoI ও Grupo Comporte-কে ভাড়া দিয়েছে সংস্থাটি।

VX4 ইলেকট্রিক এয়ারক্রাফ্ট আকাশে ওড়ার জন্য কোন রানওয়ের প্রয়োজন নেই, কারণ এগুলি যে কোনো জায়গা থেকে খাড়াভাবে আকাশে উড়তে পারে। এতে রয়েছে ১ জন চালক এবং ৪ জন যাত্রী বসার জায়গা। টুইন-ব্লেডের ছয় সেট রোটর আছে এতে। ২৫০ কেজি ওজন বহনের ক্ষমতা রয়েছে এগুলির। সংস্থাটি দাবি করেছে এর শক্তিশালী ব্যাটারি রোটরগুলিতে শক্তি সঞ্চার করে। একবার সম্পূর্ণ চার্জে উড়তে পারে ১৬০ কিমি৷ সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টা প্রতি ৮০ কিমি৷

গেম খেলতে এখানে ক্লিক করুন

শুভদীপ টেকগাপে অটোকার বিষয়ক লেখালিখি করে। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, অটোকার নিয়ে টেকগাপে তার হাতেখড়ি। দিনকে দিন সে টেকগাপের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হয়ে উঠেছে।